ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসার আইডিয়া

আপনি যদি ব্যবসা করার চিন্তাভাবনা করেন। তাহলে আপনার জন্য ইলেকট্রিক পণ্যের ব্যবসার একটি দারুণ আইডিয়া হতে পারে। বর্তমানে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কোন না কোন ইলেকট্রিক পণ্য লাগে। যেমন টিভি, ফ্রিজ, ফ্যান, এসি ইত্যাদি এই পণ্য গুলো আমরা নৃত্য দিনের সঙ্গী। 

ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসার আইডিয়া
ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসার আইডিয়া 

এই ইলেকট্রনিক পণ্য গুলো আপনাকে ব্যবহার করতে হবে। বর্তমানে ইলেকট্রিক পণ্যের ব্যপক চাহিদা রয়েছে বাজারে। এবং এই ব্যবসা অনেক মানুষে করতেছে তবু আপনি চাইলে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আজকে ইলেকট্রিক ব্যবসা শুরু করার জন্য কি কি করতে হবে তা নিয়ে আলোচনা করব।

ইলেকট্রিক ব্যবসার পরিকল্পনা


আপনি যেকোনো ব্যবসা শুরু করার আগে। সেই ব্যবসা সম্পর্কে ভালো করতে জানতে হবে এক কথায় রিচার্জ করতে হবে। তারপর আপনি ব্যবসা টা কিভাবে পরিচালনা করবেন তা নিয়ে ভাবতে হবে। আপনি যদি ইলেকট্রিক ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে আপনাকে ব্যবসা টার সম্পর্কে ভালো ধরনা থাকতে হবে।

 ইলেকট্রনিক ব্যবসা কিভাবে করতে হয় কত মূলধন লাগে লাভ কেমন ঝুঁকি কেমন তা সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধরনা থাকতে হবে। আপনি ইলেকট্রিক ব্যবসা ২ ভাবে শুরু করতে পারবেন প্রথম ডিলারশিপ ব্যবসা এবং দ্বিতীয় খুচরা ব্যবসা।

আরো পড়ুন 



ইলেকট্রিক ব্যবসার মূলধন 


পৃথিবীতে ছোট বড় সকল ব্যবসা শুরু করার জন্য মূলধনের প্রয়োজন হয়। সে ক্ষেত্রে আপনার ইলেকট্রিক ব্যবসার ক্ষেত্রে ও মূলধনের প্রয়োজন হবে। ইলেকট্রিক ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার প্রথমে পাঁচ থেকে দশ লক্ষ টাকার প্রয়োজন হবে। 

পাইকারি পণ্য ক্রয় তারপর অগ্রিম দোকান ভাড়া। দোকানে ডেকোরেশন ইত্যাদি ক্ষেত্রে টাকা লাগবে। আপনার কাছে যদি পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা না থাকে তাহলে আপনি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারেন।

 ইলেকট্রিক ব্যবসার দক্ষতা


ইলেকট্রিক ব্যবসা শুরু করলে। আপনাকে বিভিন্ন রকমের পণ্যের নাম জানতে হবে। যাতে একজন কাস্টমার আপনার দোকানে যদি কোন জিনিস কিনতে আসলে সেই পণ্যের সম্পর্কে ভালো ভাবে ধারণা দিতে পারেন। 

পণ্যের দাম পণ্যেটি ব্যবহার করলে কি কি সুবিধা পাবে এবং কি কি অসুবিধা হবে তা কাস্টমার কে জানাতে হবে।

ইলেকট্রিক পণ্যের তালিকা


ইলেকট্রিক পণ্যের নাম হলো যেমন টিভি, ফ্রিজ, ফ্যান, ওয়াশি মেশিন, মাইক্রোওভেন, এসি, আয়রন মেশিন, আইপিএস, ব্লেন্ডার মেশিন, বিভিন্ন রকমের লাইট, ইত্যাদি।

ইলেকট্রিক পাইকারি বাজার 


ঢাকায় আপনি ইলেকট্রিক পাইকারি অনেক বাজার ও দোকান পেয়ে যাবেন। গুলশান, নবাবপুর, এছাড়া ও আপনি আরো অনেক দোকান পেয়ে যাবে চট্টগ্রামে ও ইলেকট্রিক পাইকারি দোকান আছে। আর যদি আপনি পারেন তাহলে সরাসরি কোম্পানি থেকে পণ্য কিনে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার জন্য অনেক ভালো হবে। 

ইলেকট্রিক পণ্যের দাম 


দেখুন ইলেকট্রিক পণ্যের দাম পণ্য অনুযায়ী থাকে। যেমন যদি একটি লাইটের কথা ধরি তাহলে একটি এনার্জি লাইটের দাম ১০০ টাকা থেকে শুরু হয়। এক্ষেত্রে আপনার যদি একটি লাইট পাইকারি ৭০ টাকা ও যদি কিনা হয় তাহলে আপনি প্রতি লাইটে ৩০ টাকা করলে লাভ করতে পারবেন। 

তবে ইলেকট্রিক পণ্যের দাম সব সময় এক রকমের থাকে না। যেমন টিভি ফ্রিজের দাম সব সময় কমে আর বাড়ে।

আরো পড়ুন 



ইলেকট্রিক দোকান ডেকোরেশন 


আপনি যখন একটি ব্যবসা শুরু করবেন তখন দোকান টা যেন দেখতে সুন্দর হয়। পাশাপাশি আপনার দোকানে জিনিস গুলো সুন্দর করে গুছিয়ে রাখতে পারেন। ইলেকট্রিক ব্যবসা করার জন্য তো দোকান অবশ্যই ডেকোরেশন করতে হবে। 

না হলে পণ্য ভালো করে সাজিয়ে রাখতে পারবেন। দোকান ডেকোরেশন করতে বেশি কিছু টাকা খরচ হবে। আপনার দোকানে ডেকোরেশন যদি ভালো হয় তাহলে অনেক কাস্টমার কে আকর্ষণ করবে দোকানে আসার জন্য। 

ইলেকট্রিক দোকান নাম 


যে কোন ব্যবসা শুরু করার সময় একটি সুন্দর আকর্ষণীয় নাম দিতে হবে। আপনাকে এমন নাম দিতে হবে যেন একদম মানুষ দেখে বুঝতে পারে আপনি কিসের দোকান দিতেছেন। 

ইলেকট্রিক দোকানের ব্যানার 


দোকান দেওয়ার পর দোকানের কিছু ব্যানার বানিয়ে রাখবেন। এবং বিভিন্ন বাজারে বা সেখান মানুষের বেশি সমাগম হয় সেখানে লাগবেনা। ব্যানার দেখার পর মানুষ জানতে পারবে আপনার দোকান সম্পর্কে এবং কোন জিনিসের দরকার হলে আপনার দোকানে যাবে। 

ইলেকট্রিক দোকানের লাইসেন্স 


যেকোন ব্যবসা শুরু করার সময় লাইসেন্স নেওয়া দরকার। আপনার বয়স যদি ১৮ বছর হয় তাহলে আপনি লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আপনি শহরে থাকেন তাহলে সিটি কর্পোরেশন অফিস থেকে আর যদি গ্রামের থাকেন তাহলে পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে আপনার দরকার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে লাইসেন্স নিতে হবে। 

আরো পড়ুন 


Next Button
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url