এফিলিয়েট মার্কেটিং কি 


এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইনে বিভিন্ন কোম্পানির ডিজিটাল বা ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারবেন। আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করবেন। 

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করব
এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করব



এবং সেই লিংক ক্লিক করে অফিশিয়াল সাইট থেকে যদি কোন পণ্য কিনে এবং সেই পণ্যের কিছু টাকা আপনি পাবেন মানে commission পাবেন। বিভিন্ন পণ্যের উপর বিভিন্ন কমিশন দেওয়া হয়। 

আরো পড়ুন 



কেন এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন 


এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইনে ঘরে বসে সহজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এফিলিয়েট মার্কেটিং কে আপনি ক্যারিয়ার বা পেশা হিসেবে নিতে পারবে। 

এইটি একটি স্বাধীন পেশা। এফিলিয়েট সাইটে সব সময় এক্টিভ থাকা লাগে না। আপনার ওয়েবসাইটে ইচ্ছে মতো পণ্য দিতে পারবেন। এফিলিয়েট সাইটে গুগল এডসেন্স থেকে ও টাকা ইনকাম করা যায়।

 বিভিন্ন কোম্পানির প্রডাক্ট রাখার ফলে কোম্পানির কাছে আপনার ওয়েবসাইটের ব্রান্ড ভেলু অনেক বেড়ে যায়। এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো


এফিলিয়েট মার্কেটিং করা অনেক সহজ। এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার আগে আপনাকে affiliate program join করতে হবে । এফিলিয়েট মার্কেটিং আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে ফেসবুক পেজ, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব, পিন্টারেস্ট, লিঙ্কডিন, টুইটার ইত্যাদি প্রোপাইল ক্রিয়েট করে। 

সেখানে আপনি আপনার সিলেক্ট করা পণ্য লিংক দিতে পারবে। এছাড়াও আপনি আলাদা ভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন। 

আমার মতে এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ওয়েবসাইট বানিয়ে তাতে লিংক দেওয়া। কোন পণ্য বা সার্ভিস সম্পর্কে মানুষ বেশি গুগলে সার্চ করে। 

লাভজনক এফিলিয়েট প্রডাক্ট 


এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে এমন প্রডাক্ট বেছে নিতে হবে যা মানুষ বেশি সার্চ করে এবং বেশি কিনে। এছাড়াও আপনাকে এমন প্রডাক্ট বেছে নিতে হবে যে গুলোর কমিশন বেশি দেয়। 

যেমন স্মার্ট ফোন বা মোবাইল, ডোমেইন হোস্টিং, ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লগার টিম, বই, ল্যাপটপ, জামা কাপড়, সফটওয়্যার ইত্যাদি লাভ জনক প্রডাক্ট। এই প্রডাক্ট গুলো মানুষ তাদের কাজে প্রতিনিয়ত ব্যবহার করে থাকে। 

এই পণ্য গুলো বিক্রি করে আপনি মাস লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কোন রকম কষ্ট ছাড়া। 

এফিলিয়েট মার্কেটিং সাইট


বর্তমানে ছোট বড় বেশির ভাগ ব্যবসায় এফিলিয়েট মার্কেটিং প্রোগ্রাম চালু করছে। একেক সাইটে একেক রকম কমিশন দিয়ে থাকে। 

নিচে কিছু লাভজনক এফিলিয়েট প্রোগ্রামের নাম দেওয়া হলো যেখানে আপনি ফ্রি তে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। 

আরো পড়ুন 



১. Amazon


Amazon হচ্ছে পৃথিবীর সেরা e-commerce ওয়েবসাইট। এখানে আপনি সকল ধরনের ডিজিটাল বা ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট পেয়ে যাবেন। বর্তমানে অ্যামাজনের এফিলিয়েট প্রোগ্রাম চালু আছে। আপনি ফ্রি তে রেজিস্ট্রেশন করে তাদের পণ্য বিক্রি করে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবে। 

২. Flipkart 


Flipkart ভারতের নামকরা জনপ্রিয় E-commerce ওয়েবসাইট। এখানে আপনি ফ্রিতে রেজিস্ট্রেশন করে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া লিংক শেয়ার করতে পারেন। 

৩. Godaddy 


আপনি যদি জামা কাপড়, বই, ইত্যাদি ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট বিক্রি করতে না চান। তাহলে আপনি ডোমেইন এবং হোস্টিং বিক্রি করতে পারবেন। ডোমেইন হোস্টিং অনেক লাভজনক ব্যবসা।

 Godaddy ওয়েবসাইটে গিয়ে তাদের এফিলিয়েট প্রোগ্রামে রেজিস্ট্রেশন করে তাদের ডোমেইন হোস্টিং বিক্রি করতে পারেন। Godaddy একটি বিখ্যাত ডোমেন হোস্টিং কোম্পানি। 

 ৪. Hostgator 


Godaddy মতো আপনি Hostgator তাদের ডোমেইন হোস্টিং বিক্রি করতে পারেন। এই কোম্পানি আপনাকে প্রতি বিক্রিতে তিন হাজার টাকা অব্দি দেবে। 

৫. Ebay 


Amazon, flipkart, মতো Ebay তে ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারবেন। Ebay হচ্ছে online shopping website এখানে আপনি সব ধরনের পণ্য পেয়ে যাবেন। 


৫. WordPress theme 


ডোমেইন হোস্টিং মতো আপনি বিভিন্ন WordPress theme বিক্রি করতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরী করতে হলে থিমের প্রয়োজন হয়। কোন কোন সাইটে একটি থিম বিক্রি করে দিলে থিমের অর্ধেক টাকা ও দিয়ে দেয়। 

মোবাইল দিয়ে এফিলিয়েট মার্কেটিং 


মোবাইল দিয়ে কি এফিলিয়েট মার্কেটিং করা যায়? আমরা মত হচ্ছে করা যায়। আপনি ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে ও এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন। এর জন্য ব্লগার (Blogger) ব্যবহার করতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress) দিয়ে করা যাবে না। 

এফিলিয়েট মার্কেটিং কোর্স 


এফিলিয়েট মার্কেটিং করার আগে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং কি। কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করেন তা জানতে হবে। এইসব জানার জন্য আপনি কোর্স কিনতে পারেন। 

অবশ্য কোর্স কিনতে টাকা লাগবে। বর্তমানে অনলাইনে অনেক কোর্স পাওয়া যায়। কোর্স কিনলে ভালো সাপোর্ট পাওয়া যায়। আর যদি ফ্রিতে শিখতে চান তাহলে ইউটিউব থেকে শিখতে পারবেন। 

ইউটিউবে সব ধরনের ভিডিও পেয়ে যাবেন। শুধু আপনাকে রিসার্চ করে সঠিক ভিডিও খুঁজে নিয়ে একটি ভিডিও প্লেলিস্ট তৈরি করতে হবে। 

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি হালাল 


এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে একটি অনলাইন দোকানের মতো। এখানে আপনি নানা রকম পণ্যের লিংক শেয়ার করবেন। আপনি যদি জামা কাপড়, জুতা, বই, কসমেটিক্স পণ্যের লিংক শেয়ার করেন। এবং এখানে থেকে যা টাকা আসবে তা আমার মতে হালাল হবে। 

আর যদি মদ, ইত্যাদি নেশা জাতীয় জিনেসর লিংক শেয়ার করেন তা থেকে যে টাকা আসবে তা হারাম হবে। আমি মনে করি 


Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন