গুগল কি


গুগল পৃথিবীর সেরা সার্চ ইঞ্জিন। ১৯৯৮ সালে ৪ সেপ্টেম্বর একটি প্রাইভেট লিমিটেড হিসেবে গুগল প্রতিষ্ঠিত হয়। গুগল এত বড় সার্চ ইঞ্জিন যে এখানে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় সকল তথ্য পেয়ে যাবেন।

গুগল কি? গুগলের সেরা ১০টি অ্যাপ
গুগল কি? গুগলের সেরা ১০টি অ্যাপ 



 যেমন সফটওয়্যার, ভিডিও, মুভি, গেম, ইমেজ, আপনার প্রয়োজনীয় ইনফরমেশন ইত্যাদি পেয়ে যাবেন। গুগল এখন আর শুধু সার্চ ইঞ্জিন নেই এটি এখন পৃথিবীর অন্যতম মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানি। বর্তমানে গুগলের অনেক সার্ভিস ও প্রডাক্ট রয়েছে।

 যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে গুগলে সার্ভিস ও প্রডাক্টের প্রয়োজন সীমাহীন। ২০১৬ সাল থেকে গুগল তাদের নিজস্ব অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন উৎপাদন শুরু করছে। 

গুগলের মোবাইলের নাম হচ্ছে "google pixel" মোবাইলটির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে মার্কেটে। সেরা একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন। গুগলে ৯৮৭৭১ জন বেশি মানুষ কর্মরত আছেন। গুগলে চাকরি করা অনেকের কাছে স্বপ্ন।


গুগল কিভাবে আয় করে 


গুগল পৃথিবীর সেরা সার্চ ইঞ্জিন হওয়াই। এখানে প্রতিদিন অনেক মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় ইনফরমেশন বা তথ্য জানার জন্য গুগলে ভিজিট করেন। আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে গুগলের সব কিছু তো ফ্রি তাহলে সেখান থেকে কিভাবে আয় করে। 

গুগলের আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস বিজ্ঞাপন দেখিয়ে। বিজ্ঞাপন দেখিয়ে গুগল প্রতিদিন অনেক টাকা ইনকাম করে। Google AdSense, Google Admob, Google adwords, থেকে ইনকাম করে। এছাড়াও Google play store, 

Google Device, Google map, জি সুইট ইত্যাদি থেকে টাকা ইনকাম করে।

আরো আরো পড়ুন 


গুগলের সেরা অ্যাপ 


গুগলের সেরা অ্যাপ্লিকেশন বা অ্যাপ গুলো আপনার কোন না কোন কাজে ব্যবহার হবে। এখন গুগলের সেরা কিছু অ্যাপ নিয়ে আলোচনা করব।

১. ইউটিউব (YouTube) 


গুগলের পর পৃথিবীর দ্বিতীয় সেরা সার্চ ইঞ্জিন ইউটিউব। ইউটিউব গুগলের নিজস্ব ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম। ইউটিউবে প্রতি মিনিটে ৫০০ মিনিটের ভিডিও আপলোড করা হয়। 

২০০৫ সালে ইউটিউব তৈরি করা হয়। এবং ২০০৬ সালে গুগল এটিকে ১.৬৫ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে কিনে নেয়। ইউটিউবে আপনি সকল ধরনের ভিডিও পেয়ে যাবেন। ইউটিউব ভিডিও 

ইনফরমেশন ভিডিও, টিউটোরিয়াল, মুভি, গেমিং ভিডিও, নিউজ ইত্যাদি আরো অনেক অনেক রকম ভিডিও পাবেন। 

২. গুগল ড্রাইভ (google drive) 


গুগল ড্রাইভ কি, গুগল ড্রাইভের মধ্যে আপনি নিজের সফটওয়্যার, ভিডিও, পিডিএফ ফাইল, ইত্যাদি আপনার মোবাইল ফোনের মেমোরিতে না রেখে গুগল ড্রাইভ রাখতে পারবেন। 

গুগল ড্রাইভে ১৫ জিবি স্টোরেজ পাবেন। আপনি যদি আপনার কোন ফাইল, ভিডিও ইত্যাদি মেমোরি বা pen drive রাখেন তাহলে তা কিছু দিন পর নষ্ট হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে। কিন্তু গুগল ড্রাইভে বছরের পর বছর রাখলে ও তা নষ্ট হবে না। 

আপনি চাইলে গুগল ড্রাইভের স্টরেজ আরো বাড়িয়ে নিতে পারবেন। এর জন্য গুগল কে মাসে বা বছরে টাকা দিতে হবে। আপনি গুগল ড্রাইভে সর্বোচ্চ 2TB পর্যন্ত স্টোরেজ কিনতে পারবেন। 

৩. গুগল ম্যাপ (Google map) 


গুগল ম্যাপ পুরো পৃথিবীকে আমাদের হাতের মুঠো এনে দিয়েছে। গুগল ম্যাপ আমাদের নানা কাজে সাহায্য করে। গুগল ম্যাপের কারণে অচেনা জায়গা সহজে চিনে যেতে পারবেন।

 কোথাও যাওয়ার সময় রাস্তা ভুলে গেলে সঠিক রাস্তা খুঁজে বের করতে গুগল ম্যাপ সাহায্য করে। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০০৫ সালে গুগল ম্যাপ চালু করে গুগল। আপনি পৃথিবীর যে কোন রাস্তার ছবি সহজে পেয়ে যাবেন। 

এটি ইন্টারনেট ছাড়া ও ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। এটি গুগলে একটি ফ্রি সার্ভিস। 

৪. প্লে স্টোর (play store) 


Google play store হচ্ছে অ্যান্ড্রয়েডের দোকন এখানে আপনি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ গেমস ইবুক ইত্যাদি পেয়ে যাবেন। ২০০৮ সালে ২২ অক্টোবর চালু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত Play store 3.48 million apps রয়েছে।

 এখানে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় অ্যাপ গেম ইত্যাদি খুব সহজে ও নিরাপদে ডাউনলোড করতে পারবেন। গুগল প্লে স্টোর অ্যাপ ফ্রি ও পেইড দুইটা পাওয়া যায়। 

৫. গুগল নিউজ (google news) 


গুগল নিউজ কি, গুগল নিউজ গুগলের মালিকানাধীন একটি প্রতিনিয়ত নিউজ পরার সাইট। এটি ২০০২ সালে ২২ সেপ্টেম্বর চালু করে গুগল। গুগল নিউজের মাধ্যমে প্রতি মিনিটে নতুন নতুন খবর পরতে পারবেন।

 গুগল নিউজে রয়েছে পৃথিবীর সকল নিউজ সাইট। আপনি নিউজ পরতে হলে প্রতিদিন সকালে নিউজ পেপার কিনতে হবে। আবার এখানে সারাদিনের আর কোন খবর পাবেন। কিন্তু গুগল নিউজে আপনার সারাদিনের খবর পাবেন খুব সহজে। 

৬. গুগল ট্রান্সলেট (google translate) 


গুগল ট্রান্সলেট হলো গুগলের একটি অসাধারণ সার্ভিস। Google translate ব্যবহার করে আপনি সহজে পৃথিবীর সকল ভাষা ট্রান্সলেট করতে পারবেন। এটি গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস। 

গুগল ট্রান্সলেট ব্যবহার করে বাংলা থেকে ইংলিশ, হিন্দি থেকে বাংলা সহজে করতে পারবেন। 

৭. জিমেইল (Gmail) 


কোন দরকার প্রয়োজনে আমরা সহজে ইমেইল ব্যবহার করি। এটি অনেক সহজ ও দ্রুত। গুগল জিমেল আমরা সবাই কম বেশি ব্যবহার করি। এটি গুগলে ফ্রি সার্ভিস। 

৮. ব্লগার (blogger) 


 ব্লাগর হচ্ছে গুগলে একটি ফ্রি সার্ভিস। এটির সাহায্য আপনি সহজে আপনার ওয়েবসাইটে বানাতে পারবেন। এই ব্লগার দিয়ে হাজার হাজার মানুষ ফ্রি ওয়েব সাইট তৈরি করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করতেছে। ২০০৩ সালে গুগল এটিকে কিনে নেয়। 

৯. স্ন্যাপসিড (snapseed) 


Snapseed হলো গুগলের একটি ফটো এডিটিং অসাধারণ অ্যাপ। এটি ব্যবহার করে অসাধারণ সব ফোটা এডিটিং করতে পারবেন। এখানে অনেক টুলস রয়েছে যা সঠিক ভাবে ব্যবহার করে একটি ছবিকে আকর্ষণীয় করতে তুলতে পারবেন।

 ছবিতে নানা রকম কালার দিতে পারবেন। পৃথিবীর সেরা ফটো এডিটিং অ্যাপ গুগলর মধ্যে snapseed অন্যতম। ২০১১ সালে প্রথম অ্যাপটি চালু করা হয়। চালু হওয়ার পর থেকে এটি জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলছে। 

১০. গুগল ডক্স (Google Docs) 


গুগল ডক্স কি, গুগল ডক্স হচ্ছে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের মতো এখানে আপনি সহজে কোনো ডকুমেন্ট তৈরি করতে পারবেন। 

তা সংরক্ষণ করতে পারবেন। আপনার যদি টাইপ করতে ইচ্ছে না করে তাহলে মুখে বলে ও লিখতে পারবেন। এটি চমৎকার একটি অ্যাপস। এটি ফ্রি ব্যবহার করার সুবিধা দিচ্ছে গুগল। 

আরো পড়ুন 




Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন